ঢাকা, ২০ অক্টোবর, ২০১৯ || ৪ কার্তিক ১৪২৬
Breaking:
Mukto Alo24 :: মুক্ত আলোর পথে সত্যের সন্ধানে
সর্বশেষ:
৮৪১

কবি,লেখক ও সাংবাদিকঃআব্দুস সাত্তার এর-

কিছু কথা না বললেই নয়...(১০)

ওয়াশিংটন ডিসি থেকেঃ আব্দুস সাত্তার

প্রকাশিত: ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৪  

অনেক পরিকল্পনা করে এক সপ্তাহের জন্য ক্যালিফোর্নিয়া আসা। এথম কাজটি ছিল আমার গবেষণার কিছু কাগজ পত্র ইউনিভার্সিটিতে জমা দেওয়া। দ্বিতীয় কাজ ঘুরে ঘুরে ক্যালিফোর্নিয়া দেখা। এরপর লস এঞ্জেলেসের ফোবানা ২০১৪ এ অংশ গ্রহণ।

ওয়াশিংটন ডিসি থেকে ২২৭৯ মাইল পথ পাড়ি দিয়ে এসে গবেষণা ও ঘুরা ঘুরির কাজটি সুন্দর ও সুষ্ঠ ভাবে সেরে ফোবানায় রাখা সংরক্ষিত হোটেল রুমে উঠি। সম্নেলন শুরু হয় ২৯ শে আগস্ট। নতুন ও পুরাতন মিলিয়ে আড্ডা ভালই জমেছে শেষ রাতে হোটেল লভিতে ও বাহিরে!

আমি বা আমরা কি চাই বা কি করব তা হয়ত বলতে চাই বা করতে চাই কিন্ত বিধাতার ঈশারা ছাড়া কিছুই করা সম্ভব নয়! আজ তেমনই একটা কান্ড হয়ে গেল। আমি কোন দিনও ভাবিনী এমন একজন মানুষের সাথে দেখা হয়ে যাবে অপ্রত্যাশিত ভাবে।

আজ ফোবানার দ্বিতীয় দিন সকাল থেকেই শুরু হয়ে গেল সেমিনার। আমি অতি আগ্রহ নিয়ে রওয়ানা হলাম সাহিত্য ও কবিতা আসরে অংশ গ্রহণ করার জন্য। ঠিক সময় মতো পৌছে যাই সংরক্ষিত রুমে কিন্ত যেয়ে দেখি সেই রুমে ইয়থ সেমিনার হচ্ছে। কি করব বসে গেলাম কয়েকজনের বক্তব্য শুনলাম। তারপর মনমুগ্ধকর বক্তব্য রাখলেন সুমাইয়া কাজী। ওয়াও! তিনি নিজের ক্যারিয়ার কিভাবে তৈরি করেছেন তার উপর বিশাল আলোচনা। নতুন প্রজন্মের যারা উপস্থিত ছিলেন আমার মনে হয় সবাই নীরব ভাবে তাঁর কথাগুলো শুনেছেন।

বন্ধুরা এবার হয়ত জেনে গেছেন কাকে নিয়ে লিখতে যাচ্ছি। আমি যার কথা লিখতে যাচ্ছি তিনি হলেন সুমাইয়া কাজী। যাকে এই পৃথিবীর সবাই নামে চিনে। ইয়ত সেমিনার শেষ হবার পর কিছুক্ষন বিরতি দেওয়া হয় তারপর শুরু হবে সাহিত্য ও কবিতার আসর। আজ সাহিত্য ও কবিতা আসরে আলোচনা করবেন বাংলাদেশের নামকরা শিল্পী লিনা তাপসী। এই ফাঁকে আমি ও আমার বন্ধু কবির ভাই রুমের বাহিরে দাঁড়িয়ে কথা বলতেছি ঠিক সেই সময় পাশে দেখি সুমাইয়া কাজী ইয়ং কয়েকজনের সাথে বিজনেস নিয়ে আলোচনা করছে। আমি একটু সামনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করছিলাম যদি একটু কথা বলা যায়। সবার কথা শেষ হলে আমার পরিচয়টা দিয়ে কুশল বিনিময় করলাম। কিছুক্ষন কথা বলার পর আমি জানতে চাইলামঃ-
- আপনি কি বাংলা পড়তে পারেন?
- জি পড়তে পারি।
-কেন বলুন তো?
- আমি লেখা-লেখির সাথে জড়িত। আর আমার কয়েকটি বই ও প্রকাশ হয়েছে অমর একুশের বই মেলায়। এবার ও বাংলা একাডেমীর অমর একুশের বই মেলায় নন্দিতা প্রকাশ থেকে " জোছনা আসে ফিরে " কাব্য প্রকাশিত হয়েছে। আপনাকে দিতে চাই।
- অবশ্যই নিব। দিন প্লিজ।
- বইটি হাতে নিয়ে একটি ছবি তুলতে বললেন।
-আমি বললাম ছবিটি ফেইস বুকে, মিডিয়াতে ও আগামী বই য়ে যাবে।
- আমাকে ট্যাগ দিবেন প্লিজ।

কয়েক মিনিট পরেই শুরু হয়ে গেল সাহিত্য ও কবিতার আসর। লিনা তাপসী অনেক্ষন প্রিয় কবি নজরুল ও রবিন্দ্রনাথ নিয়ে বিশাল আলোচনা করলেন। তারপর কবি, লেখক ও আবৃক্তি কারদের মনমুগ্ধকর পরিবেশনায় পুরো হলটি যেন ভালোবাসায় ভরপুর হয়ে গিয়েছিল। সেই সময় সুমাইয়া কাজী আমার জোছনা আসে ফিরে বইটির কয়েকটি পাতা উল্টিয়ে দেখলেন এবং সাহিত্য ও কবিতা আসরটি উপভোগ করলেন।
 
কে এই সুমাইয়া কাজী এবার লিখতে হয়। পুরোনাম: সুমাইয়া আন্দালিব কাজী) জন্মসূত্রে বাংলাদেশী মার্কিন নাগরিক(পৈতৃক নিবাস-ফেনী জেলা শহর) এবং বিখ্যাত নারী উদ্যোক্তা। তিনি সংবাদসংস্থা রয়টার্স এবং ক্লাউটপ্রকাশ করা বিশ্বের সেরা প্রভাবশালী ৫০ উদ্যোক্তার তালিকায় ১৬ নম্বরে অবস্থান করছেন। বাবা ডক্টর নিজাম উদ্দিন কাজী, মা মেরিনা কাজী তটিনি। দুই ভাই, দুই বোনের মধ্যে সুমাইয়া সবার বড়। সুমাইয়া কাজীর পৈত্রিক বাড়ি বাংলাদেশে ফেনীর জেলা শহরে। জন্ম, বেড়ে ওঠা যুক্তরাষ্ট্রের লস এনঞ্জেলেস। এখন তিনি কর্মসূত্রে থাকছেন যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়ার সানফ্রান্সিসকো বে-এলাকায়।

ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়ার বার্কলে থেকে মার্কেটিং এবং স্ট্যাটেজিক প্লানিংয়ে উচ্চতর ডিগ্রি অর্জন করেন সুমাইয়া। তিনি লেখা পড়া শেষ করে সানমাইক্রোসিস্টেম নামক একটি প্রতিষ্ঠানে সিনিয়র সোস্যাল মিডিয়া ম্যানেজার হিসেবে কাজে যোগদেন।

২০০৫ সালে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন ‘কালচারাল কানেক্ট ডট কম’ (টিসিসিসি) নামের প্রতিষ্ঠান। টিসিসিসি থেকে প্রকাশিত হচ্ছে পাঁচটি সাপ্তাহিক ই-ম্যাগজিন। ম্যাগাজিনগুলো হচ্ছে, দ্যা দেশি কানেক্ট, দ্যা মিডলইস্ট কানেক্ট,দ্যা এশিয়া কানেক্ট,দ্যা ল্যাটিন কানেক্ট,দ্যা আফ্রিকান কানেক্ট।

২০০৬ সালেও বিজনেস উইক ম্যাগাজিন কর্তৃক আমেরিকায় অনুর্ধ ২৫ বছর বয়সী সেরা উদ্যোক্তার তালিকায় স্থান পান সুমাইয়া কাজী। একই বছর সেই ম্যাগাজিনে প্রকাশিত বিশ্বের সেরা ৭৫ জন মহিলা উদ্যোক্তার একজন নির্বাচন হন সুমাইয়া। এছাড়াও তিনি যুক্তরাষ্ট্রের বিজনেস উইক ম্যাগাজিন ও কালার লাইট ম্যাগাজিন থেকে ‘সেরা তরুণ উদ্যোক্তা’ পুরস্কারসহ বেশ কয়েকটি পুরস্কার অর্জন করেছেন। তিনি  সিএনএনের ‘ইয়ং পারসন হু রকস’ এবং কালার লাইট ম্যাগাজিনের সেরা তরুণ উদ্যোক্তা পুরস্কার।

আমি কোনদিন ভাবিনী সুমাইয়া কাজীর সাথে আমার দেখা হবে এবং নিজের কাঁচা হাতে লেখা বইসব উনাকে দিতে পারব। আমি সত্যি আজ অনেক অনেক আনন্দিত। অনেক অনেক ধন্যবাদ সুমাইয়া কাজী আপনাকে। আমার মত একজন সামান্য লেখকের বই সাদরে গ্রহণ করেছেন। আপনার আগামী দিনগুলো আরও উজ্জল হয়ে উঠুক। আপনি আরও কিছু করুন যেখানে বাঙ্গালী জাতির নামটি যুক্ত থাকে। আল্লাহ আপনার সহায় হউক। আমিন।

আরও পড়ুন
পাঠক কলাম বিভাগের সর্বাধিক পঠিত