ঢাকা, ৩১ মে, ২০২০ || ১৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭
Breaking:
কোভিড-১৯ প্যানডেমিকে হার না মানার গল্প:অধ্যাপক ডা.মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল)       গণপরিবহন পরিচালনায় স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে : ওবায়দুল কাদের      করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের ব্যাংক ঋণের ২ হাজার কোটি টাকা সুদ মওকুফের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর     
Mukto Alo24 :: মুক্ত আলোর পথে সত্যের সন্ধানে
সর্বশেষ:
  করোনায় একদিনে রেকর্ড ৪০ জনের মৃত্যু,শনাক্ত হয়েছে ২৫৪৫ জন        এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী        এবার২০ লাখ পরীক্ষার্থীর মধ্যে প্রায় ১৭ লাখ পাস        গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি না মানলে ব্যবস্থা: সেতুমন্ত্রী     
৬৫৭

দাদা মুক্তিপণ আদায় করলেন নাতিকে অপহরণ করে

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩ জুলাই ২০১৪   আপডেট: ২০ আগস্ট ২০১৪

অপহৃত শিশু সায়মুন হাসান সামিকে (৪) উদ্ধার করেছে পুলিশ পাবনায়। তবে অপহরণকারী আপন দাদা ইসলাম মোল্লা পলাতক রয়েছেন।অপহরণের ১৫ দিন পর শনিবার ফরিদপুর উপজেলার নিউ মার্কেট এলাকা থেকে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়। অপহৃত সামি সদর উপজেলার খয়েরসুতী গ্রামের কবির হোসেন মোল্লার ছেলে। শনিবার সন্ধ্যা  ৬টার দিকে সামিকে তার বাবা-মার কাছে তুলে দেওয়া হয়েছে।সদর থানা পুলিশ ও সামির পরিবার জানায়, খয়েরসুতী গ্রামের কবীর হোসেন মোল্লার ছেলে সামিকে গত  ২৬ জুন তারিখে তার দাদা ইসলাম মোল্লা চকলেট কিনে দেওয়ার নাম করে বাড়ি থেকে নিয়ে যান। এরপর থেকে সামির আর কোনো খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিলো না।
 সামির মা হেলেনা আক্তার জানান, সামিকে তার দাদা নিয়ে গেছে এ কথা জানার পর তারা দাদার মোবাইল ফোনে বারবার যোগাযোগ করে ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়। পরের দিন ২৭ জুন ইসলাম মোল্লা তার ছেলে কবিরের কাছে ফোন করে সামিকে ফিরে পেতে ৫০ হাজার টাকার মুক্তিপণ দাবি করেন। ছেলেকে ফিরে পাওয়ার জন্য ওই দিনই (২৭ জুন) সামির বাবা ইসলাম মোল্লাকে বিকাশের মাধ্যমে ৫০ হাজার টাকা প্রদাণ করেন। এরপর আরো টাকার দাবিতে ইসলাম মোল্লা সামির বাবাকে চাপ দিতে থাকে। টাকা না দিলে সামিকে মেরে ফেলার হুমকিও দেন তিনি।

এদিকে সামির পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি পুলিশে জানানো হয়। পুলিশ সামির নিরাপত্তার বিষয়টি মাথায় রেখে কৌশল অবলম্বন
করেন।পরে, ইসলাম মোল্লার কললিস্ট ধরে অনুসন্ধার করে শুক্রবার রাত ১১টার দিকে ফরিদপুর উপজেলার নিউ মার্কেট এলাকা থেকে সামিকে উদ্ধার করা হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ইসলাম মোল্লা পালিয়ে যায়। সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী হানিফুল ইসলাম জানান, উদ্ধারের পর শনিবার বিকেলে সামিকে আদালতের মাধ্যমে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। অপহরণকারী দাদা ইসলাম একজন বিয়ে পাগল পুরুষ। এ পর্যন্ত তার চারটি বউ রয়েছে।এ ব্যাপারে সামির মা হেলেনা আক্তার বাদী হয়ে তার শ্বশুর ইসলাম মোল্লাকে  আসামি করে পাবনা থানায় একটি অপহরণ মামলা দায়ের করেছেন। ‘সূত্র ইন্টারনেট’

আরও পড়ুন
পাবনার খবর বিভাগের সর্বাধিক পঠিত