ঢাকা, ২২ নভেম্বর, ২০১৯ || ৮ অগ্রাহায়ণ ১৪২৬
Breaking:
Mukto Alo24 :: মুক্ত আলোর পথে সত্যের সন্ধানে
সর্বশেষ:
৭০৮

নারীদের নারীসুলভ বিষয়গুলো আসলে কী?

অনলাইন ডেস্ক

প্রকাশিত: ১৩ জুলাই ২০১৪   আপডেট: ১৩ আগস্ট ২০১৪

কী কী বিষয় রয়েছে নারীসুলভ একজন মেয়ের মধ্যে? সোশাল এন্টারটেইনিং সার্ভিস রেডিট ব্যবহারকারী একজন অনলাইনে পরামর্শ চেয়ে একটি প্রশ্ন ছুঁড়ে দিলেন। তা হলো- `আমি যদি হঠাৎ করেই আগামীকাল মেয়ে হয়ে যাই তাহলে কী হবে?` এই প্রশ্নের জবাব দিয়েছেন ৯ হাজারেরও বেশি নারী। তাদের পরামর্শ হলো, মেয়ে হয়ে গেলে আপনি একটি চকোলেটের দোকানের আশপাশে থাকুন আর যথেষ্ট পরিমাণ প্যাড মজুদ করুন।পুরুষদের মাঝে নারীদের সম্পর্কে বিস্তারিত জানার বিষয়ে আগ্রহের কমতি নেই। চকোলেট প্রীতি আর ঋতুস্রাব দিয়েই নারীদের আলাদা করা যায় না। তাদের মধ্যে রয়েছে আরো অনেক কিছু। সেই অনেক কিছুকে আপনাদের সামনে তুলে এনেছেন দি ইনডিপেন্ডেন্টের রিপোর্টার ও এডিটোরিয়াল অ্যাসিস্টেন্ট কোল হ্যামিলটন।
কোল লিখেছেন, তাই যদি একদিন সকালে উঠে দেখেন যে আপনি মেয়ে হয়ে গেছেন, তাহলে প্রথমেই নতুন দৈহিক বৈশিষ্ট্য নিয়ে একটু গবেষণা করুন। আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে নিজের দেহের প্রতিটি ইঞ্চি পর্যবেক্ষণ করুন, প্রতিটি বাঁক, প্রতিটি ত্বকের ভাঁজ ইত্যাদি। কারণ বাসা থেকে বের হওয়া মাত্রই শুধু পুরুষই নয়, নারীরাও আপনাকে পর্যবেক্ষণ করতে থাকবেন। অনুভব করুন, আগে দেহের যেখানে কোণ আকৃতি ছিলো সেখানে এখন হয়েছে বাঁক। শক্ত এবং রুক্ষ স্থানগুলো হয়েছে কোমল ও মসৃণ। দেহের কিছু অংশ যেখানে অনেক লোম ছিল, তা হয়েছে লোমহীন। এই দেহটিকে উপভোগ করুন।
আরো দারুণ বিষয় অনুভ করবেন বক্ষযুগল নিয়ে। অপূর্ব সুন্দর, কোমল, জীবনী প্রাচুর্যতায় ভরপুর। দারুণ আনন্দ নিয়ে স্তনের নানা বৈশিষ্ট্যকে উপভোগ্য করে তুলুন।
নারী হওয়ার আরেকটি দারুণ বিষয় হলো, দেহের যাবতীয় সৌন্দর্যহানীকর অংশগুলোকে আধুনিক প্রসাধন দিয়ে ঢেকে ফেলতে পারবেন। আরেকটি বাজে বিষয় হলো, আপনার সৌন্দর্য নিয়ে নানা গবেষণা চালাবে মানুষ। বিভিন্নভাবে সৌন্দর্যকে সংজ্ঞায়িত করে আপনার মনকে খারাপ করে দেবে মিডিয়া। তাই সার্বিক চেষ্টা করুন এসব থেকে দূরে থাকতে।
মেয়েদের ঋতুঘটিত বিষয়টি অন্যগুলো মতোই প্রাকৃতিক। তাই এই বিষয়ে আপনাকে অবশ্যই সচেতন থাকতে হবে সব সময়। বিশেষ করে যে সময় থেকে আপনার পিরিয়ড শুরু হবে তার আগে বাড়িতে প্যাড কিনে না রাখলে মহাবিপদ আপনার।
যখন পুরুষতান্ত্রিক কোনো পরিবেশে কাজ করবেন, তখন অন্য যে কেউ আপনাকে দেখলে কারো না কারো সেক্রেটারি বলে মনে করবে। পুরুষ থাকা অবস্থায় হয়তো অন্য নারীদের নিয়ে রসিকতা করতেন। কিন্তু এখন আপনার দেহের নানা অঙ্গ অন্য পুরুষদের রসিকতার খোরাক হবে। এসব ঘটনায় প্রতিবাদী হওয়ার জন্যেও আপনাকে শক্ত হতে হবে।
সন্তানের জন্ম দেওয়ার মাহাত্ম আপনিই উপভোগ করবেন। কিন্তু একজন ঔদ্ধত্যপূর্ণ সন্তান ভবিষ্যতে আপনার কষ্টের কারণ হতে পারে। আবার যে পুরুষটিকে সঙ্গী হিসেবে বেছে নিবেন, তিনি সন্তান না নেওয়ার পক্ষে থাকলে বেশ সংগ্রাম করতে হবে আপনাকে। আবার সন্তানের জন্ম হওয়ার পর যদি সঙ্গী আগের মতো উদাস থাকেন তাহলেও নতুন অতিথির দায়ভার আপানাকেই সামলাতে হবে। কারণ হাজার হলেও তাকে গর্ভে ধরেছেন আপনি।
কর্মস্থলে পুরুষ সহকর্মীরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই নাক উঁচিয়ে চলবে এবং আপনাকে প্রতিযোগী হিসেবেই ভাববে। তাদের হয় এড়িয়ে চলুন বা তাদের মতোই হয়ে যান। তেবে মেয়েরা নিষ্ঠুর হতে পারে। পুরুষরা আঘাত করে, কিন্তু মেয়েরা ঢাল ব্যবহার করে। যৌনতার ওপর একটি পাতলা আবরণ তৈরি করুন। কারণ মেয়েরা সেক্সের ক্ষেত্রে সব সময় অবাধ থাকেন না। মেয়েদের সঙ্গে মেয়েদের বন্ধুত্ব বেশ ক্ষমতা ধারণ করে।
নারীসুলভ হতে পারেন, তবে যারা জোর করে নিজের মতামত চাপিয়ে দিতে চান তাদের থেকে দূরে থাকুন।
সবচেয়ে বড় কথা, এসব বিষয়ের সঙ্গে একটু লবণ মিশিয়ে নিন, লিখেছেন কোল হ্যামিলটন। যদি সত্যিই সকালে উঠে দেখেন যে নারী হয়ে গেছেন তাহলে মনে রাখবেন, দুজন নারী এক রকম নন। তবে সব নারীই প্রকৃতির অপরূপ সৃষ্টি। সূত্র : ইনডিপেন্ডেন্ট

লাইফস্টাইল বিভাগের সর্বাধিক পঠিত