ঢাকা, ১৩ নভেম্বর, ২০১৯ || ২৮ কার্তিক ১৪২৬
Breaking:
Mukto Alo24 :: মুক্ত আলোর পথে সত্যের সন্ধানে
সর্বশেষ:
৭১২

শুক্রবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নন-ক্যাডার দাবিতে মহাসমাবেশ

মোঃসরোয়ার জাহান

প্রকাশিত: ২৩ নভেম্বর ২০১৭   আপডেট: ২৩ নভেম্বর ২০১৭

"শিক্ষাই জাতির মেরুদণ্ড " আর জাতির মেরুদণ্ড সুদৃঢ় রাখতে প্রয়োজন গুনগত শিক্ষা। গুনগত শিক্ষার জন্য প্রয়োজন মানসম্মত শিক্ষক। যেনতেন ভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত কম মেধাসম্পন্ন ক্ষেত্রবিশেষ অর্থের বিনিময়ে নিয়োগপ্রাপ্ত শিক্ষক দ্বারা গুনগত শিক্ষা নিশ্চিত করা সম্ভব নয়।
শিক্ষা ক্ষেত্রে বর্তমানে আলোচিত একটি বিষয় হলো নব্য জাতীয়করণকৃত ২৮৩ টি কলেজের শিক্ষকদের ক্যাডার,নন-ক্যাডার হওয়া।

জাতির পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণের অংশ হিসেবে প্রতিটি উপজেলায় একটি কলেজ সরকারি করণের উদ্যোগ গ্রহন করেছেন তারই সুযোগ্য কন্যা বর্তমান মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা।

বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতির নেতৃবৃন্দ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর এ উদ্যোগকে স্বাগত জানায়, তবে তাদের দাবি নতুন জাতীয়করণকৃত কলেজের শিক্ষকদের ক্যাডার বহির্ভূত রেখে নতুন নীতিমালা প্রণয়ন করতে হবে। বিসিএস ছাড়া ক্যাডার সার্ভিস নয় ( No Bcs No Cadre) দাবিতে সমিতি ইতিমধ্যে বিভাগীয় সমাবেশ সম্পন্ন করেছে এবং আগামী ২৪ নভেম্বর, শুক্রবার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মহাসমাবেশ আহবান করেছে। উক্ত মহাসমাবেশে সারাদেশ থেকে ক্যাডার সার্ভিসের প্রায় ১৫০০০ সদস্য অংশগ্রহন করবে বলে বিশ্বস্ত সুত্রে জানা গেছে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুশাসন ও জাতীয় শিক্ষানীতি- ২০১০ মেনে জাতীয়করণকৃত কলেজ শিক্ষকদের নন-ক্যাডার ঘোষনা না করা হলে ক্লাস- পরীক্ষা বর্জনসহ লাগাতার কর্মসূচী দেয়া হবে বলে জানা গেছে।

এ ব্যাপারে ৩১তম বিসিএস কর্মকর্তা এম এ বাসার বলেন, "মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা” অনুশাসন দিয়েছেন, নব্য জাতীয়করণকৃত কলেজের শিক্ষকরা অন্যত্র বদলি হতে পারবে না, যা মূলত নন-ক্যাডারের বেলায় প্রযোজ্য। তাছাড়া অন্য ক্যাডারেও আত্নীকরণ তবে ক্যাডার বহির্ভূত রেখে। তিনি আরো বলেন, সরকারি কলেজ ও বেসরকারি কলেজের শিক্ষকদের নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পুর্ণ ভিন্ন, একজন বেসরকারি কলেজের শিক্ষক যেন-তেনভাবে, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে অথবা ম্যানেজিং কমিটিকে ম্যানেজ করে নিয়োগপ্রাপ্ত হন তাছাড়া তাদের রেজাল্টও উল্লেখ করার মতো নয়।

অন্যদিকে একজন বিসিএস ক্যাডার লক্ষ লক্ষ প্রতিযোগির মধ্যে প্রতিযোগিতা করে ২০০ নম্বরের প্রিলিমিনারি, ১১০০ নম্বরের লিখিত, ২০০ নম্বরের ভাইভা,পুলিশ ভেরিফিকেশন ও স্বাস্থ্য পরীক্ষার মাধ্যমে চুরান্তভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত হন। সুতরাং সরকারি কলেজ ও বেসরকারি কলেজের শিক্ষকদের মর্যাদা কখোনো এক হতে পারেনা। তাদেরকে কখোনোই ক্যাডারে মেনে নেয়া হবেনা।"

সুতরাং শিক্ষা ব্যবস্থায় যে অস্থিরতার সৃষ্টি হয়েছে তার একমাত্র সমাধান হতে পারে নতুন জাতীয়করণকৃত কলেজ শিক্ষকদের ক্যাডার বহির্ভূত রেখে নতুন নীতিমালা প্রণয়ন করা। তাহলেই এগিয়ে যাবে শিক্ষা ব্যবস্থা, এগিয়ে যাবে দেশ; গড়ে উঠবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা।

 
মুক্তআলো২৪.কম/২৩নভেম্বর

 

আরও পড়ুন
জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত